ঢাকা, , ২০ জানুয়ারী, ২০২১

থাইল্যান্ডে যথাযোগ্য মর্যাদায় মহান বিজয় দিবস উদযাপন

টাইমসনিউজটোয়েন্টিফোর.কম

Wednesday,16 December 20 11:07:10

মোঃ জুয়েল রানাঃ আজ ১৬ ডিসেম্বর ২০২০  মহান বিজয় দিবস।পরাধীনতার শৃঙ্খল মুক্তির দিন আজ।বাঙালি জাতির জীবনে সবচেয়ে গৌরবোজ্জ্বল অর্জনের স্মৃতিবিজড়িত দিন আজ। তাই দিনটি স্নরণে বাংলাদেশের মতো থাইল্যান্ডেও যথাযোগ্য মর্যাদায় এবং উৎসাহ-উদ্দীপনার মধ্য দিয়ে মহান বিজয় দিবস উদযাপন করেছেন থাইল্যান্ড পাতায়ার বাংলাদেশি সংগঠন থাই-বাংলাদেশি কমিউনিটি পাতায়া।আজ বুধবার সন্ধ্যা ৬:৩০ মিনিটের সময় পবিত্র কোরআন তেলোয়াত পরিবেশন,জাতীয় সংগীত পরিবেশন ও শহীদদের প্রতি শদ্ধা জানিয়ে এক মিনিট নীরবতা পালনের মধ্য দিয়ে সভার সূচনা করা হয়।

উক্ত সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন থাই-বাংলাদেশ দূতাবাসের  মিনিস্টার কনস্যুলার জনাব আহম্মেদ তারেক সুমিন।বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন থাই প্রশাসনের উদ্ধতন কর্মকর্তা রেওয়াত ফুন লুকিন।এছাড়াও উপস্থিত ছিলেন থাই-বাংলাদেশি কমিউনিটি পাতায়া এর প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি জনাব জাহাঙ্গীর হোসেন।উপস্থিত ছিলেন কমিউনিটির বর্তমান সভাপতি জনাব আব্দুল আলীম (মোল্লা),সাধারণ সম্পাদক শামসুজ্জামান শামীম সহ অন্যান্য নেতৃবৃন্দ অতিথিবৃন্দ ও পাতায়ায় অবস্থানরত প্রবাসী বাংলাদেশীরা। উক্ত সভায় সভাপতিত্ব করেন কমিউনিটির প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি জনাব জাহাঙ্গীর হোসেন।

সভায় বক্তারা স্বাধীন বাংলাদেশের স্থপতি জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ও ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্টে নিহত তার পরিবারের সদস্যদের, মুক্তিযুদ্ধের সকল শহীদ, যুদ্ধাহত মুক্তিযোদ্ধা এবং সম্ভ্রম হারানো সকল বীর নারীকে শ্রদ্ধার সাথে স্মরণ করেন এবং শহীদদের বিদেহী আত্বার মাগফিরাত কামনা করেন । প্রধান অতিথির বক্তব্যে জনাব  আহম্মেদ তারেক সুমিন  বাংলাদেশের ইতিহাসে বিজয় দিবসের তাৎপর্য তুলে ধরেন এবং মুক্তিযুদ্ধে বীর সেনানিদের আত্মত্যাগের কথা কৃতজ্ঞচিত্তে স্মরণ করেন। তিনি আরো বলেন বাংলাদেশ সরকারের নিরলস পরিশ্রম ও গতিশীল নেতৃত্বের ফলশ্রুতিতে বাংলাদেশের উন্নয়ন আজ বিশ্বের জন্য মডেল। উন্নয়নের ধারাবাহিকতা রক্ষায়  সবাইকে দেশের উন্নয়নে অবদান রাখার এবং থাইল্যান্ডে বাংলাদেশের মর্যাদা অটুট রাখার আহ্বান জানান।

পরে এক মনোমুগ্ধকর সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে দেশাত্ববোধক গান,নাচ ও কবিতা আবৃত্তি করেন বাংলাদেশী ক্ষুদে শিল্পী ও সংগীতপ্রেমী বাংলাদেশীরা।সবশেষ ক্ষুদে বন্ধুদের মাঝে পুরষ্কার বিতরন, পুনরায় জাতীয় সংগীত পরিবেশন ও নৈশভোজনের মাধ্যমে সভার সমাপ্তি ঘোষণা করা হয়।

পাঠকের মন্তব্য